Ramadan 1438H Preparation Lectures

Lecture 1 (Legal rulings and spiritual advice)

Whether it is a job interview, a presentation, an exam, a sports match, a ceremony, or any occasion of some significance, we always prepare. We just never show up without any preparation and hope to ace the occasion. Yet the sad fact is, Allah is about to bless us with the biggest month of the year, and majority of us are not exerting any effort whatsoever to prepare for it. We think we can simply show up and ace the month, but isn’t it sad that we only demonstrate such counter-intuitive attitude for religious matters and almost never for worldly matters?

My dear fellow Muslims! The month of Sha’ban is not over yet, and we still have 10 days left to prepare for the most generous month of the year. Here is a quick four step Ramadan preparation guide:

1. Repent: Repent from your past sins. Sins are like burden on your back. No runner can enter a race with a burden on his back and expect to win. Similarly, we cannot enter the month of Ramadan with a soul weighed down by sins and expect it to sprint in worship. Therefore, purify it now with repentance.

2. Learn: Learn the fiqh rulings pertaining to this month before the month begins.

3. Increase: Start increasing your level of worship. Fast a few days, read more Quran, and pray extra prayers so that you are acclimatized with increased level of worship before the beginning of Ramadan.

4. Make Ramadan planner: Ramadan should not be the month when you live every moment as it comes. Prepare a Ramadan plan so that you know beforehand what you will be doing at each time slot and thereby squeeze the most out of this month.

Finally my fellow Muslims, I STRONGLY RECOMMEND you to listen to the following lecture by Shaykh Yasir Qadhi about preparing for Ramadan. The shaykh beautifully explained the fiqh rulings of Ramadan and followed it with some heart melting spiritual reminders about this month.

May Allah make this Ramadan the best Ramadan, and may He bless us with many more Ramadans, and may He make each Ramadan better than previous Ramadan!

Lecture 2 (How to make our hearts submit)

A beautiful lecture by Shaykh Omar Suleiman about how to submit our hearts to Allah during the month of Ramadan. The key points from the lecture are as follows:

(1) The word ‘taqwa’ linguistically means ‘to protect’ or ‘to shield’. In Islamic sense, ‘taqwa’ means to protect or shield yourself from the punishment of Allah.

(2) Taqwa can be defined in many ways, but generally, taqwa means that Allah is always obeyed, and never disobeyed, and that Allah is always remembered and never forgotten. Always remembering Allah does not meaning always doing literal dhikr of Allah, rather it means to be conscious of Allah during all our actions and interactions.

(3) ‘Umar bin ‘Abd al-‘Azīz said: “None can reach the state of taqwā until he possesses neither actions nor words that can be exposed to his embarrassment, either in this world or the Hereafter,” and he was once asked: “When does the worshipper reach the peak of taqwā?” So, he replied: “If he puts all the thoughts and desires in his heart on a plate and then wandered around in the market, he should not feel ashamed of anything there.” [‘Min Akhlāq as-Salaf’; p. 56]

(4) Allah commanded the believers to strive to attain taqwa in numerous verses of the Quran, and the foremost verse among them is the following:

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا اتَّقُوا اللَّهَ حَقَّ تُقَاتِهِ وَلَا تَمُوتُنَّ إِلَّا وَأَنتُم مُّسْلِمُونَ
O you who have believed, fear Allah as He deserves be feared and do not die except as Muslims [in submission to Him]. [The Noble Quran 3:102]

When this verse was revealed, the companions were terrified, for it is not possible for any human to fear Allah and be conscious of him like He DESERVES to be FEARED. Thereafter, out of His Mercy, Allah revealed the following verse:

فَاتَّقُوا اللَّهَ مَا اسْتَطَعْتُمْ
So fear Allah as much as you are able [The Noble Quran 64:16]

Many scholars of the Quran said that while both verses (3:102 and 64:16) are still recited today, Allah abrogated the meaning of 3:102 with that of 64:16. However, the latter verse cannot be used as a leeway or excuse to commit sins. A Muslim is not allowed to say that he has tried his best to stay away from a certain sin but failed and thus committing the sin. Rather, the correct understanding of the verse is this: when it comes to executing the injunctions of Allah, Muslims must strive their best to fulfill them in the best possible manner, and when it comes to prohibitions, they must avoid them altogether. This is how the Messenger of Allah (ﷺ) explained the verse in the following hadith:

“What I have forbidden for you, avoid. What I have ordered you [to do], do as much of it as you can.” [Al-Bukhari & Muslim]

Notice that when it comes to prohibitions, the Messenger of Allah (ﷺ) commanded us to avoid them altogether, because Allah never burdens a soul beyond its capacity to withstand:

لَا يُكَلِّفُ اللَّهُ نَفْسًا إِلَّا وُسْعَهَا ۚ
Allah does not charge a soul except [with that within] its capacity. [The Noble Quran 2:286]

(5) Before we attend any training course, the objectives and learning outcomes are laid out. At the end of the course, if we attain those objectives, the completion of the course is considered successful. If we do not attain those objectives, our mere attendance and going through the motions of the course mean nothing. Similarly, the end goal for the month of Ramadan is to attain taqwa, as Allah has clearly mentioned in the following verse:

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا كُتِبَ عَلَيْكُمُ الصِّيَامُ كَمَا كُتِبَ عَلَى الَّذِينَ مِن قَبْلِكُمْ لَعَلَّكُمْ تَتَّقُونَ
O you who have believed, decreed upon you is fasting as it was decreed upon those before you that you may attain taqwa [The Noble Quran 2:183]

While we are planning to do a lot of good deeds in the month of Ramadan, we must not lose sight of the end goal – to attain taqwa. I am not downplaying the importance of doing good deeds, but if at the month we fail to achieve taqwa, if we fail to eliminate certain disobedience and sins from our lives, our Ramadan mission will be a failure.

(6) The similitude of a heart that has no taqwa but is doing a lot of good deeds is that of jar with holes – no matter how much water is poured, it will never be filled.

(7) Remember that taqwa is primarily demonstrated in avoiding the prohibitions. Muslims and non-Muslims alike do good deeds. For example, an atheist occasionally donates to charity and shows kindness to his neighbor. However, you will never find a non-believer who gives up his desire or self-pleasure for the sake of God. Also, the primary motivation for not doing good deeds is laziness whereas the primary motivation for committing sins is self-pleasure. Therefore, you can only attain true taqwa and claim love of God when you can give up your sinful self-pleasures for the sake Allah.

(8) For those who are doing good deeds but have failed to attain taqwa and leave out Allah’s prohibitions, should be afraid of the following verse and hadith of the Messenger of Allah (ﷺ) :

يَوْمَ يَرَوْنَ الْمَلَائِكَةَ لَا بُشْرَىٰ يَوْمَئِذٍ لِّلْمُجْرِمِينَ وَيَقُولُونَ حِجْرًا مَّحْجُورًا
وَقَدِمْنَا إِلَىٰ مَا عَمِلُوا مِنْ عَمَلٍ فَجَعَلْنَاهُ هَبَاءً مَّنثُورًا
The day they see the angels – no good tidings will there be that day for the criminals, and [the angels] will say, “Prevented and inaccessible.” And We will regard what they have done of deeds and make them as dust dispersed. [The Noble Quran 25:22-23]

“I indeed know that some people from my Ummah will come on the Day of Judgment with good deeds like the white mountains of Tihama, but Allah will make them scattered dust.” Thawban said, ‘O Messenger of Allah, describe them to us, so that we may not be one of them without knowing it!’ He (ﷺ) said, “They will be your brothers, and from your people, and they will take from the night as you do (meaning prayers, etc.), but they are a people who, when they were alone with the prohibitions of Allah, violated them.” [Ibn Maajah]

Therefore my fellow Muslims! Beware of your end goal of Ramadan – attaining taqwa. Sincerely ask Allah to make you from the people of taqwa. Has time not come to be a person of true taqwa? And what opportunity can you have greater than the month of Ramadan to make that transformation in your life?

أَلَمْ يَأْنِ لِلَّذِينَ آمَنُوا أَن تَخْشَعَ قُلُوبُهُمْ لِذِكْرِ اللَّهِ وَمَا نَزَلَ مِنَ الْحَقِّ
Has the time not come for those who have believed that their hearts should become humbly submissive at the remembrance of Allah and what has come down of the truth? [The Noble Quran 57:16]

(Go through the lecture for more learning)

কুমিল্লার আঞ্চলিক ভাষার কিছু ক্লাসিক ডায়ালগ

 

map_commillaবাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি জেলারই রয়েছে স্বকীয় আঞ্চলিক ভাষা। আঞ্চলিক ভাষার রয়েছে আলাদা সৌন্দর্য। কোন একটি অঞ্চল ও সেই এলাকার মানুষকে ভাল মত বুঝতে হলে সেই এলাকার আঞ্চলিক ভাষাটিও বুঝতে হয়। আমি কুমিল্লার মানুষ। এবারের দেশের ছুটিতে গিয়ে দেশের মানুষের ভাষা মনোযোগ দিয়ে শুনতাম। সেই শোনা থেকে কিছু কথা নিচে তুলে ধরলাম, যেগুলোকে আমার মনে হয়েছে কুমিল্লার ক্লাসিক ডায়ালগ।

 
০১.
আমাদের বাড়ির ঊঠোনে মাটি ফালানোর জন্য গ্রামের কয়েকজন এসেছিলেন। এদের একজন আমাকে বলছিলঃ

“তোমার বুজি এনা আমগোরে চিনে, আমগোরে দেখলে অনে হ্যাঁক্যাইলোইলে, অই চোরেরা, তোরা কই যাস?”

 
০২.
একটা সদাই আনার জন্য গ্রামের বাজারে যাচ্ছিলাম এক বিকেলে। সড়কের মোড়ে শোনলাম এক যুবক আরেকজনকে বলছেঃ

“ওই, তুই বলে জেসমিনরে বিয়া করবি?”

 

০৩.
বাঞ্ছারামপুর বেড়াতে গিয়েছিলাম আমার দূর সম্পর্কের এক নানার বাড়িতে। নানার এক সৎ ভাই নানার জমিগুলো চাষবাস করেন। জমিতে শীতের প্রায় সব শাক-সবজি ছিল। বিশাল ক্ষেতের এক জায়গায় দেখলাম কিছুই নেই। জিজ্ঞেস করলাম, “নানা, এই জায়গাটা খালি কেন?” নানা বললেনঃ

“বান্যাইছিলাম, অয় নাই।”

 
০৪.
জুমুয়ার নামাযের সালাম ফিরালেন ইমাম সাহেব। সেদিন পেছনের সারিতে মাদ্রাসার ছোট ছাত্ররা খুব আওয়াজ করছিল নামাযের সময়। নামাযের সময় তাদের এই দুষ্টুমিতে বিরক্ত বয়স্ক মিজান সাহেব হেঁকিয়ে উঠলেনঃ

“আমি কি নামাযের সময় হুজুরের ক্বিরাত হুনমু, নাকি ছুইটক্যাগর আওয়াজ হুনমু? এই ছুইটক্যাগুলিরে মসজিদে না আনলে হয় না?”

 
০৫.
আমাদের বাড়িতে দেয়ালে প্লাস্টারের কাজ করছিল দুই রাজমিস্ত্রী। তাদের কথোপকথনের একাংশঃ

প্রথমজনঃ হে যেই দেমাক দেখাইত!
দ্বিতীয়জনঃ কাইজ্যা লাগলে কইত-তোর মাথাত যেতলা চুল, আমার এর চেয়ে বেশি ট্যাকা…
প্রথমজনঃ অহন নাই, গ্যাছে গা সব…
দ্বিতীয়জনঃ শুনছি খালি দুইটা পুত আসে সিঙ্গাপুর
প্রথমজনঃ নামে আসে, কামে নাই
দ্বিতীয়জনঃ একটা আইসে হেদিন দেশে। জিগাইলাম, কি আনসোস? কয় মামা, খালি জানডা লয়া আইসি, কিচ্ছু আনি নাই”

 
০৬.
উপজেলা শহর হোমনায় বাজার করতে গেছি একদিন। হঠাৎ এক রিকশার চাকার সাথে আরেক রিকশার চাকার সংঘর্ষ লাগল। পাশের আরেক রিকশাওয়ালা চেঁচিয়ে উঠলঃ

“ক্ষ্যাপাজ্যাপা কইরা রিকশাডা লাগায়া দিছে, ড্রেইভার হইসে রে, ড্রেইভার হইসে!”

 
০৭.
বালু আর মাটি সরানোর কাজ করছিল দুই শ্রমিক। তাদের মধ্যকার কথোপকথনঃ

প্রথমজনঃ কি মারস?
দ্বিতীয়জনঃ চ্যালা।
প্রথমজনঃ মারস কিত্তি, ইডি কামড়ায় না।
দ্বিতীয়জনঃ কোনডি কামড়ায়?
প্রথমজনঃ যেডি পুটকি উপরের দিক দিয়া হাঁডে!

 
০৮.
বাজারে টমেটো বিক্রি করছিল এক সবজিওয়ালা। এক ক্রেতা হাঁকালোঃ

“বাগুন কত?”
“তিরিশ”
“আরে কমান না?”
“এক দাম তিরিশ। আরে নিয়া দেহেন না বাই, মুখের মইধ্যে দিলে মোমের মত গইল্যা যাইবোগা”

 

০৯.
এক শাঁক বিক্রেতা আমার আব্বুকে দেখে বলে ওঠলোঃ

“ভাই, এক দিনও শাঁক বেঁচতে পারলাম না আপনের কাছে।”
“বাসায় খাওয়ার মানুষ নাই, কেউ খায় না।”
“না খাইলে জোর কইরা খাওয়াইবেন।”

 
১০.
নিচের কথাগুলো আমার দাদির। দাদির বয়স ৮২ বছর। দাদির মনে জমা আছে এই সুদীর্ঘ জীবনের রাজ্যের গল্প। একবার গল্প শুরু করলে, গল্প আর শেষ হয়না। কষ্ট হলেও অনেক গুল্প শুনেছি দাদির। সেই সব গল্পের কিছু অংশঃ

“আমার হেই ছোড পোলাডার চোখগুলি আসিল ডাঙ্গর। আর শইল্যের রঙডা আছিল দুধের মত, ছাই দিয়া খেললেও কালি লাগত না শইল্যের মইধ্যে। জরা বানায়া ভাত খাইত, এক জরা খাইত, আর এক জরা কাউয়ারে দিত।”

“তোর দাদায় যেদিন মরছে, হেদিন খাওয়াইয়া ফোতায় দিসি। কিছুক্ষণ পরে দেহি আর কতা কয় না।”

“মিসা কতা কেরে কমু, হেসা হেসা কতা কমু।”

“কম খাইলে নি রিজিকটা থাহে।”

“আমি জবর কস্ট করসি আমার বাপের বাইত, আমি সম্পত্তি না আনলে হালাল হইব না।”

“পানি ভাত লৈইয়া কাইজ্যা করত আমার পোলা-মাইয়ারা। সৈ সান দা পানি ভাত খাইতো।”

“পোলায় এনা মারে ফালায় দে, মায় কি পোলারে ফালায় তারে?”

“তোমার দাদায় যে হাউস কইরা বিয়া করছিল, সারাডা জীবন এই হাউসডা আসিল। আমারে সব সময় তুমি কইরা কইসে।”

“আমার দান-খরায়তের কথা তোমগরে কি কমু, কেউ যদি আমার কাছে কিছু চায়, কোম্বালা হেই জিনিসটা হেরে দিমু,খালি হেই চিন্তাডা মাথাত ঘুরে। আগে মাইনষেরে যে দেওয়া দিসি, সেই গন্ধেই ত মানুষ এহনো আইয়ে আমার কাছে। কিন্তু এহন কি আর দিতারমু? সংসার চালায় পুতের বউ।”

কয়েকটি সংকলিত কবিতা

যারা কবি, তারা নিজেরা কবিতা লেখে। যাদের কবি প্রতিভা নাই, তারা অন্যের ধার করা কবিতা ব্লগে কপি পেস্ট করে।

নিচে আমাদের হাইস্কুলের বাংলার শিক্ষক আব্দুর রহিম রেজা স্যারের কয়েকটি কবিতা পোস্ট করলাম। স্যার খুব ভাল কবিতা লেখেন।

 

***

এই নবান্নে
-রহিম রেজা
এই নবান্নের কুয়াশামাখা ঝিল্লিমুখর সন্ধ্যায়
গ্রামের বাড়ির খড়-বিছানো মেঠো আঙিনায়
তুমি আর আমি শুনবো রূপকথার রঙিন গল্প
আর মেতে ওঠবো চাঁদের বাধ-ভাঙা আলোয়
স্বপ্ন-রাঙা মন নিয়ে অসীম কল্পনায়।

***

তোমাকে ভালোবেসে
-রহিম রেজা
তোমাকে ভালোবেসে
আমি হয়েছি দারুণ ঐশ্বর্যশালী
তোমাকে ভালোবেসে
আমি হয়েছি কারো কারো চোখের বালি
তোমাকে ভালোবেসে
আমি ভাসি হয়ে আকাশে মেঘের ফালি
তোমাকে ভালোবেসে
আমি জমিনে ভরা পূর্ণিমার ছায়া ঢালি
তোমাকে ভালোবেসে
আমি হাসি হয়ে বাতায়নের কদম-কলি
তোমাকে ভালোবেসে
আমি দিগন্ত বিস্তৃত ফসলের মাঠ হয়ে কথা বলি
তোমাকে ভালোবেসে
আমি ভোরের পাখি হয়ে সবুজ বনে চোখ খুলি
তোমাকে ভালোবেসে
আমি কাঠাল পাতায় বিকেলের সোনালি রোদ ফেলি
তোমাকে ভালোবেসে
আমি গ্রামের মেঠো পথ হয়ে এঁকেবেঁকে চলি
তোমাকে ভালোবেসে
আমি ছড়াই সৌ্রভ হয়ে বাগানের চম্পা-বেলী
তোমাকে ভালোবেসে
আমি ভরা জোয়ারেও চলি প্রতিকূলতার উজান ঠেলি।

***

আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
-রহিম রেজা
আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
স্বপ্নগুলো কথা দিল
তারা আর কিছুদিন পর
বাঁধবে সুখের ঘর
আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
স্বপ্নগুলো কথা দিল
তারা বষ্ণিতদের মাঝে
আসবে নতুন সাঝে
আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
স্বপ্নগুলো কথা দিল
তারা ছোট্ট শিশুর মনে
দিবে খুশীর জোয়ার এনে
আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
স্বপ্নগুলো কথা দিল
তারা ভণ্ড কাঊকে পেলে
কানটা দিবে মলে
আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
স্বপ্নগুলো কথা দিল
তারা দেশ মাতৃকার তরে
লড়বে অকাতরে
আমার কিছু স্বপ্ন ছিল
স্বপ্নগুলো কথা দিল
তারা দিন বদলের গানে
ছুটবে উজান পানে।।

***

সখি,শ্রাবণ যে চলে যায়
-রহিম রেজা
সখি
শ্রাবণ যে প্রায় চলে যায়
তাই সেই মায়ায়
আমার মতো তোমার হৃদয়ও কি পোড়ায়
সখি
শ্রাবণ যে হেসে জিগায়
তার তরে কি
অনেক ব্যথায়
মেঘলা আকাশ তোমায় কাঁদায়
সখি
শ্রাবণের এই বিদায়ের ক্ষণ
পাবে কি তোমার নিমন্ত্রণ
সখি
শ্রাবণের এই শেষ দিকের ঝিরি ঝিরি সন্ধ্যায়
তোমার চোখে কি আমার স্বপ্ন ছুঁয়ে যায়
সখি
শ্রাবণের বাকী আছে যে কটি দিন
তার রঙে তোমার জীবন
আর আমার জীবন
হয় যেন রঙিন।

***

হৃদয়ে যখন ঝড় ওঠে
-রহিম রেজা
হৃদয়ে যখন ঝড় ওঠে
মনটা তখন তোমার মায়ায় ওঠে কেঁপে
হৃদয়ে যখন ঝড় ওঠে
তোমাতেই তখন এই মনটা দিই সঁপে
হৃদয়ে যখন ঝড় ওঠে
তোমার ভাবনায় তখন মনটা কাঁদে
হৃদয়ে যখন ঝড় ওঠে
মনটা জড়ায় তখন তোমার ফাঁদে
হৃদয়ে যখন ঝড় ওঠে
নিজেকে তখন ভুলে গিয়ে
তোমার আঁচলে থাকি মুখ লুকিয়ে।

হারিয়ে ফেলা জগৎ থেকে

5950740495_a0e0504a42_b

(https://www.flickr.com/photos/55293400@N07/5950740495/in/photostream/)

প্রতিটা বয়সে মানুষের একটা জগৎ থাকে।

যখন স্কুলে পড়তাম, তখন একটা জগৎ ছিল। যখন ইউনিভার্সিটিতে পড়তাম তখন একটা জগৎ ছিল। এখন কর্মজীবনে একটা জগৎ আছে।

কোন জগতের সাথে কোন জগতের মিল নেই। প্রতিটা জগৎ স্বতন্ত্র।

মানুষ যখন একটা বয়স পার করে অন্য বয়সে চলে যায়, তখন পুরনো বয়সের সাথে আগের সেই জগৎটাকেও হারিয়ে ফেলে।

চাইলেও সেই আগের জগতে ফিরে যাওয়া যায় না। এটাই প্রকৃতির নিয়ম।

হারিয়ে ফেলা সেই জগৎ থেকে আজ মনে পড়ছেঃ

নেই কোনো কল্পনা আজ তোমায় নিয়ে
নেই কোনো প্রার্থনা আজ তোমায় চেয়ে
নেই কোনো কামনা তোমায় সাজিয়ে
নেই কোনো প্রেরণা তুমি কোথায় হারিয়ে

-নেই, তাহসান

আলো আলো আমি কখনো খুঁজে পাবে না

চাঁদের আলো তুমি কখনো আমার হবে না

-আলো, তাহসান

Quran Best Recitation Website

Welcome to my website of the best Recitation of the Noble Quran.

bestrecitation

I first listened to the Quran recited by Shaykh Saud Ibraheem Al-Shuraim and Shaykh Abdul Rahman Al-Sudais when I went for my first umrah with my parents at seven years of age. The deep voice of Shaykh Shuraim and the melodious tone of Sudais deeply impacted me and induced in my heart a love for the Quran by the will of Allah. Like every Muslim, I traverse through the highs and lows of faith (eeman), but irrespective of the state of my faith, Allah has sustained the love for His book in my heart. Since that childhood umrah, I have been an avid listener of the Quran.

After years of listening, the idea sprang into my mind that I should compile a Quran such that I will choose the best recitation of each surah per my experience and (humble) judgement. In my selection process, I have primarily listened to the taraweeh recitations of Masjidul Haram from 1414 hijri to 1437 hijri, and the recitations of few other reciters whose recitation I enjoy. By Allah’s grace, I finished my work on the vacation of Eid Al-Adha 1437.

I have spent a lot of hours creating and compiling these audio files. I sincerely hope that Allah will accept this work from me. I hope that my compilation will induce the love for the book of Allah into the heart of many Muslims.

There are many benefits to listening to the Words of Allah. Listening makes your familiar with the Quran. Listening improves your pronunciation. But to me, the greatest benefit is the consolation of Quran. No matter how depressed, sad, or wounded you are, the divine words of Quran will console you like nothing else in this world.

Therefore, I conclude with the following beautiful dua, taught by the Messenger of Allah (peace be upon him):

O Allah, I am Your servant, son of Your servant, son of Your maidservant, my forelock is in Your hand (i.e. You have total mastery over), Your command over me is forever executed and Your decree over me is just. I ask You by every name belonging to You which You named Yourself with, or revealed in Your Book, or You taught to any of Your creation, or You have preserved in the knowledge of the unseen with You, that You make the Quran the life of my heart and the light of my breast, and a departure for my sorrow and a release for my anxiety.

Ameen!

Sincerely,

The Shardul of Allah

Bangladesh Trip 2015

Observations, Thoughts, Random Reflections…