কাঙ্গালের সাবধান বাণী !

আড়িয়ল বিল

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীঃ

আড়িয়ল বিলে বিমান বন্দর নির্মাণ করা কি দরকার? যেখানে শাহজালাল বিমানবন্দরের ক্ষমতার মাত্র অর্ধেক ব্যবহৃত হচ্ছে, সেখানে বাংলাদেশের মত একটি গরিব দেশে, যেখানে চাষের জমি প্রতিনিয়ত কমে আসছে, আরেকটি আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর নির্মাণের কোন সদুত্তর নেই; থাকতে পারে না। তবে হ্যাঁ, সদুত্তর না থাকলেও উত্তর ত অবশ্যই আছে। সে উত্তর… জনগণ জানে। জনগণকে গর্দভ মনে করা এই পৃথিবীর সবচেয়ে বড় আহাম্মকি। জিয়া বিমানবন্দরকে শাহজালাল বিমান বন্দর করার পরেও আপনার মনে মানসিক প্রশান্তি আসে নি। সে কারণের জো তুলেছেন বংগপিতার নামে বিমান বন্দর করার। বংগপিতার নামে প্রতিষ্ঠান-সেতুর নাম তো কম হই নি। কিন্তু তারপরও আপনার মনে রয়েছে অতৃপ্তি। এই অতৃপ্তি থেকে জন্ম নিয়েছে খামখেলিয়াপনার, যে খামখেলিয়াপনার কারণে ১০ লাখ মানুষের পেটে লাথি পড়বে। আপনি না জননেত্রী, জনগণের সেবক? এটা কি সেবার নমুনা? এটা সেবার নমুনা না, এটা মোনাফেকীর নমুনা। এই মোনাফেকী আপনাকে এতই অন্ধ করেছে, যে ১০ লাখ মানুষের অভিশাপ, তাদের চোখের পানি, তাদের আহাজারির কোন কানাকড়ি মূল্যও নেই আপনার কাছে। এই অন্ধত্বের কারণের আপনি বুঝতে পারছেন না যে আপনার বাপের নামে আপনি যতই নামকরণ করূন না কেন, এগুলো তাঁকে এক বিন্দু পরিমানও শান্তি দিতে পারবে না আখিরাতে। এগুলো তাকে অবিনশ্বরও করতে পারবে না। এগুলো তাঁর আজাবের কারণ হচ্ছে বরং। তবে এই সব কঠিন কথা-বার্তা বুঝতে না চাইলে কোন অসুবিধা নেই প্রধানমন্ত্রী। দুই দিনের প্রধানমন্ত্রী আপনি। যেমন ছি্লেন আপনার বাবা। আজকে আপনার বাবার ঠিকানা কোথায় হয়েছে? মাটির নিচে, কবরে। সেই ১০ লাখ মানুষের ঠিকানা কোথায় হবে? মাটির নিচেই হবে। সেদিন খুব দূরে নয়, যেদিন আমার ঠিকানা, আপনার ঠিকানা মাটির নিচেই হবে। তবে হ্যাঁ, ক্ষমতায় থাকাকালে মনে হয় না যে ভাই আজরাইল কোন দিন আসেব। যেদিন আজরাইল আসবে, যেদিন কবরের নিচে ঠিকানা হয়ে যাবে, রোজ হাশরের ময়দানে যেদিন আল্লাহর সামনে দাঁড়াবেন জবাব দেয়ার জন্য, সেদিন বংগবাবা আপনাকে বাঁচাতে পারবে না। উলটো আপনার বাবা সেদিন আপনাকে অভিশাপ দেবেন। বঙ্গবন্ধু বিমান বন্দর সেদিন আপনার গলায় পরিতাপের বোঝা হয়ে ঝুলবে।সেদিন সেই ১০ লাখ মানুষের একজনও যদি আপনাকের ক্ষমা না করে, আল্লাহও আপনাকে ক্ষমা করবেন না। কোন বান্দার অধিকার যখন খর্ব করা হয়, সেই বান্দা যতক্ষণ তাঁর অধিকার খর্বকারীকে ক্ষমা না করবে, আল্লাহও তাকে ক্ষমা করবেন না। এটা আল্লাহর প্রতিশ্রুতি। আড়িয়ল বিমান বন্দর নিমার্নের প্রতিশ্রুতির যদি হেরফের না হয়, আল্লাহর প্রতিশ্রুতির হেরফের হবে-এটা কি কেউ ঘূর্ণাক্ষরেও চিন্তা করতে পারে?

সুতরাং সাবধান।

বিনীত,

আল্লাহর শার্দুল

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s