Category Archives: Personal

কুমিল্লার আঞ্চলিক ভাষার কিছু ক্লাসিক ডায়ালগ

 

map_commillaবাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি জেলারই রয়েছে স্বকীয় আঞ্চলিক ভাষা। আঞ্চলিক ভাষার রয়েছে আলাদা সৌন্দর্য। কোন একটি অঞ্চল ও সেই এলাকার মানুষকে ভাল মত বুঝতে হলে সেই এলাকার আঞ্চলিক ভাষাটিও বুঝতে হয়। আমি কুমিল্লার মানুষ। এবারের দেশের ছুটিতে গিয়ে দেশের মানুষের ভাষা মনোযোগ দিয়ে শুনতাম। সেই শোনা থেকে কিছু কথা নিচে তুলে ধরলাম, যেগুলোকে আমার মনে হয়েছে কুমিল্লার ক্লাসিক ডায়ালগ।

 
০১.
আমাদের বাড়ির ঊঠোনে মাটি ফালানোর জন্য গ্রামের কয়েকজন এসেছিলেন। এদের একজন আমাকে বলছিলঃ

“তোমার বুজি এনা আমগোরে চিনে, আমগোরে দেখলে অনে হ্যাঁক্যাইলোইলে, অই চোরেরা, তোরা কই যাস?”

 
০২.
একটা সদাই আনার জন্য গ্রামের বাজারে যাচ্ছিলাম এক বিকেলে। সড়কের মোড়ে শোনলাম এক যুবক আরেকজনকে বলছেঃ

“ওই, তুই বলে জেসমিনরে বিয়া করবি?”

 

০৩.
বাঞ্ছারামপুর বেড়াতে গিয়েছিলাম আমার দূর সম্পর্কের এক নানার বাড়িতে। নানার এক সৎ ভাই নানার জমিগুলো চাষবাস করেন। জমিতে শীতের প্রায় সব শাক-সবজি ছিল। বিশাল ক্ষেতের এক জায়গায় দেখলাম কিছুই নেই। জিজ্ঞেস করলাম, “নানা, এই জায়গাটা খালি কেন?” নানা বললেনঃ

“বান্যাইছিলাম, অয় নাই।”

 
০৪.
জুমুয়ার নামাযের সালাম ফিরালেন ইমাম সাহেব। সেদিন পেছনের সারিতে মাদ্রাসার ছোট ছাত্ররা খুব আওয়াজ করছিল নামাযের সময়। নামাযের সময় তাদের এই দুষ্টুমিতে বিরক্ত বয়স্ক মিজান সাহেব হেঁকিয়ে উঠলেনঃ

“আমি কি নামাযের সময় হুজুরের ক্বিরাত হুনমু, নাকি ছুইটক্যাগর আওয়াজ হুনমু? এই ছুইটক্যাগুলিরে মসজিদে না আনলে হয় না?”

 
০৫.
আমাদের বাড়িতে দেয়ালে প্লাস্টারের কাজ করছিল দুই রাজমিস্ত্রী। তাদের কথোপকথনের একাংশঃ

প্রথমজনঃ হে যেই দেমাক দেখাইত!
দ্বিতীয়জনঃ কাইজ্যা লাগলে কইত-তোর মাথাত যেতলা চুল, আমার এর চেয়ে বেশি ট্যাকা…
প্রথমজনঃ অহন নাই, গ্যাছে গা সব…
দ্বিতীয়জনঃ শুনছি খালি দুইটা পুত আসে সিঙ্গাপুর
প্রথমজনঃ নামে আসে, কামে নাই
দ্বিতীয়জনঃ একটা আইসে হেদিন দেশে। জিগাইলাম, কি আনসোস? কয় মামা, খালি জানডা লয়া আইসি, কিচ্ছু আনি নাই”

 
০৬.
উপজেলা শহর হোমনায় বাজার করতে গেছি একদিন। হঠাৎ এক রিকশার চাকার সাথে আরেক রিকশার চাকার সংঘর্ষ লাগল। পাশের আরেক রিকশাওয়ালা চেঁচিয়ে উঠলঃ

“ক্ষ্যাপাজ্যাপা কইরা রিকশাডা লাগায়া দিছে, ড্রেইভার হইসে রে, ড্রেইভার হইসে!”

 
০৭.
বালু আর মাটি সরানোর কাজ করছিল দুই শ্রমিক। তাদের মধ্যকার কথোপকথনঃ

প্রথমজনঃ কি মারস?
দ্বিতীয়জনঃ চ্যালা।
প্রথমজনঃ মারস কিত্তি, ইডি কামড়ায় না।
দ্বিতীয়জনঃ কোনডি কামড়ায়?
প্রথমজনঃ যেডি পুটকি উপরের দিক দিয়া হাঁডে!

 
০৮.
বাজারে টমেটো বিক্রি করছিল এক সবজিওয়ালা। এক ক্রেতা হাঁকালোঃ

“বাগুন কত?”
“তিরিশ”
“আরে কমান না?”
“এক দাম তিরিশ। আরে নিয়া দেহেন না বাই, মুখের মইধ্যে দিলে মোমের মত গইল্যা যাইবোগা”

 

০৯.
এক শাঁক বিক্রেতা আমার আব্বুকে দেখে বলে ওঠলোঃ

“ভাই, এক দিনও শাঁক বেঁচতে পারলাম না আপনের কাছে।”
“বাসায় খাওয়ার মানুষ নাই, কেউ খায় না।”
“না খাইলে জোর কইরা খাওয়াইবেন।”

 
১০.
নিচের কথাগুলো আমার দাদির। দাদির বয়স ৮২ বছর। দাদির মনে জমা আছে এই সুদীর্ঘ জীবনের রাজ্যের গল্প। একবার গল্প শুরু করলে, গল্প আর শেষ হয়না। কষ্ট হলেও অনেক গুল্প শুনেছি দাদির। সেই সব গল্পের কিছু অংশঃ

“আমার হেই ছোড পোলাডার চোখগুলি আসিল ডাঙ্গর। আর শইল্যের রঙডা আছিল দুধের মত, ছাই দিয়া খেললেও কালি লাগত না শইল্যের মইধ্যে। জরা বানায়া ভাত খাইত, এক জরা খাইত, আর এক জরা কাউয়ারে দিত।”

“তোর দাদায় যেদিন মরছে, হেদিন খাওয়াইয়া ফোতায় দিসি। কিছুক্ষণ পরে দেহি আর কতা কয় না।”

“মিসা কতা কেরে কমু, হেসা হেসা কতা কমু।”

“কম খাইলে নি রিজিকটা থাহে।”

“আমি জবর কস্ট করসি আমার বাপের বাইত, আমি সম্পত্তি না আনলে হালাল হইব না।”

“পানি ভাত লৈইয়া কাইজ্যা করত আমার পোলা-মাইয়ারা। সৈ সান দা পানি ভাত খাইতো।”

“পোলায় এনা মারে ফালায় দে, মায় কি পোলারে ফালায় তারে?”

“তোমার দাদায় যে হাউস কইরা বিয়া করছিল, সারাডা জীবন এই হাউসডা আসিল। আমারে সব সময় তুমি কইরা কইসে।”

“আমার দান-খরায়তের কথা তোমগরে কি কমু, কেউ যদি আমার কাছে কিছু চায়, কোম্বালা হেই জিনিসটা হেরে দিমু,খালি হেই চিন্তাডা মাথাত ঘুরে। আগে মাইনষেরে যে দেওয়া দিসি, সেই গন্ধেই ত মানুষ এহনো আইয়ে আমার কাছে। কিন্তু এহন কি আর দিতারমু? সংসার চালায় পুতের বউ।”

Letter to Mom and Dad

Dear Mom:

I am writing this letter just to let you know that I love you. I know you have always yearned to hear these words, but having been brought up in an environment where I was never taught how to express love, I have failed to express my love for you verbally. However, please know that I love you v-e-r-y dearly, and I love you from the core of my heart.

We may have our differences, but know that at the end of day, I LOVE YOU.

I do not know why, but now a days, sometimes the horrible scenario of losing you come to my mind. I dread if I will live to see that day. The thought of losing you, who have carried me nine months in her womb with utmost love, makes me numb, and if I live to see that dreadful day, I just do not know how I will cope with it.

It is not possible for me to requite your love for me. It is not possible for me to requite the sacrifices you have made for me. I only ask Allah with all sincerity that He gives you a long, healthy life full of obedience to Allah and His Messenger (ﷺ), and I ask Him to reciprocate all your sacrifices with nothing but the highest level of Jannah.

Sincerely,

Your Son

***

Dear Dad:

I know that I have not been the best son to you. I have lost temper many times with you, and I still do. I know that you mean well to me. Please forgive my behavior. And please know that never have I fallen short of my best behavior to you except that I have felt bad afterwards for the whole day.

May Allah bless you with a good life both in this world and the next.

Sincerely,

Your Son

***

No one can articulate a better prayer for their parents than what the Most Merciful has taught us in His Glorious Book:

وَقَضَىٰ رَبُّكَ أَلَّا تَعْبُدُوا إِلَّا إِيَّاهُ وَبِالْوَالِدَيْنِ إِحْسَانًا ۚ إِمَّا يَبْلُغَنَّ عِندَكَ الْكِبَرَ أَحَدُهُمَا أَوْ كِلَاهُمَا فَلَا تَقُل لَّهُمَا أُفٍّ وَلَا تَنْهَرْهُمَا وَقُل لَّهُمَا قَوْلًا كَرِيمًا

وَاخْفِضْ لَهُمَا جَنَاحَ الذُّلِّ مِنَ الرَّحْمَةِ وَقُل رَّبِّ ارْحَمْهُمَا كَمَا رَبَّيَانِي صَغِيرًا

And your Lord has decreed that you not worship except Him, and to parents, good treatment. Whether one or both of them reach old age [while] with you, say not to them [so much as], “uff,” and do not repel them but speak to them a noble word. And lower to them the wing of humility out of mercy and say, “My Lord, have mercy upon them as they brought me up [when I was] small.” [The Noble Quran 17:23-24]

Old is Gold: 90’s Childhood in Qatar

(All the images have been collected from Facebook. If you have objection to any of these images, please let me know so that I can remove it.)

The fancier box you had, the more popular you would be in the class.

The fancier box you had, the more popular you would be in the class.

The objective of buying toys was to break it and remove motors like these.

The objective of buying toys was to break them and remove motors like these.

Old notes.

Old notes.

In supermarket, whenever we would pass by this Nido color box set, it was difficult for us to take our eyes away from it.

In supermarket, whenever we would pass by this Nido color box set, we would struggle to take our eyes away from it.

Istimara time.

Istimara time.

View master.

View master.

Best snack ever.

Best snack ever.

Only the kids of 90's will know the relationship between this cassette and a pen.

Only the kids of 90’s will know the relationship between this cassette and a pen.

Old Qatari taxi.

Old Qatari taxi.

Our dream fountain pen.

Our dream fountain pen.

Before the cricket days, our attention was in football.

Before the cricket days, our attention was in football.

This roundabout does not exist anymore.

This roundabout does not exist anymore.

QTV logo.

QTV logo.

Tiffin time.

Tiffin time.

Aladdin Kingdom.

Aladdin Kingdom.

Old currency of Qatar.

Old currency of Qatar.

Legendary Chips Oman.

Legendary Chips Oman.

1185680_10153498771255445_627032000_n

Trademark iron.

Trademark iron.

Brick game.

Brick game.

Water gun.

Water gun.

If you have lived in Qatar in the 90's, I am sure you have seen notebooks like this.

If you have lived in Qatar in the 90’s, I am sure you have seen notebooks like this.

Common notebooks of Qatar. They are still available in the market.

Common notebooks of Qatar. They are still available in the market.

Old five riyal notes.

Old five riyal notes.

Popeye the sailor.

Popeye the sailor.

Fan speed regulator.

Fan speed regulator.

Old Q-Tel phone.

Old Q-Tel phone.

Hamad General Hospital.

Hamad General Hospital.

Souq Faleh. To buy school back packs, uniform, or blanket, we would go to this market.

Souq Faleh. To buy school back packs, uniform, or blanket, we would go to this market.

Nothing could beat Tom and Jerry.

Nothing could beat Tom and Jerry.

The are supposed to aid you in writing, but we would use them to fight against each other.

The are supposed to aid you in writing, but we would use them to fight against each other.

My first watch.

My first watch.

1013896_691372260879982_516806961_n

This is how our tables and chairs looked like in school.

This is how our tables and chairs looked like in school.

Qatar women's hospital.

Qatar women’s hospital.

Computer.

First Pentium II Computer.

Pure Ghee.

Pure Ghee.

Carom board. I played it a lot but I was never very good in it.

Carom board. I played it a lot but I was never very good in it.

Brief case. My father had a brief case like this and we would often jump on it like kids jump on a trampoline.

Brief case. My father had a brief case like this and we would often jump on it like kids jump on a trampoline.

Old Qatar museum. Our favorite was the aquarium. This museum was not boring like the present Museum of Islamic Arts.

Old Qatar museum. Our favorite was the aquarium. This museum was not boring like the present Museum of Islamic Arts.

On the way to Umm Ghuwalina.

On the way to Umm Ghuwalina.

We came to Qatar with this a Gulf Air that had livery like this.

We came to Qatar with this a Gulf Air plane that had livery like this.

The watch with calculator. The guy who first brought this watch in the class was a hero.

The watch with calculator. The guy who first brought this watch in the class was a hero.

I guess this was in Wadi Al Sail.

I guess this was in Wadi Al Sail.

Thunder, thunder, thudercats. We were ever fascinated about the fight between Mamra and Thundercats.

Thunder, thunder, thudercats. We were ever fascinated about the fight between Mamra and Thundercats.

Air tickets-this is how they used to look like back then.

Air tickets-this is how they used to look like back then.

Yan Yan- it is still my favorite.

Yan Yan- it is still my favorite.

WWF-World Wrestling Federation. Our young mind was fascinated with this belt. Often after making a symbolic belt like it, I would wrestle with my brother to win the belt. Also in the 90's, there was a sumo wrestler named Yokozona, and because of being overweight, I used to be bullied as Yokozona during my kindergarten days.

WWF-World Wrestling Federation. Our young mind was fascinated with this belt. Often after making a symbolic belt like it, I would wrestle with my brother to win the belt. Also in the 90’s, there was a sumo wrestler named Yokozona, and because of being overweight, I used to be bullied as Yokozona during my kindergarten days.

Y have made it and you know it.

You have made it and you know it.

Harees. During Ramadan, we would often receive harees from as iftaar from Qatari neighbors. Lived in Doha for more than two decades and still cannot eat harees.

Harees. During Ramadan, we would often receive harees as iftaar from Qatari neighbors. Lived in Doha for more than two decades and still cannot eat harees.

Old orange colored taxis of Doha. We did not have a car for about a decade and taxi was the mean to get around.

Old orange colored taxis of Doha. We did not have a car for about a decade and taxi was the mean to get around.

Quality street chocolate.

Quality street chocolate.

Radio. During Ramadan, our hobby was listening to taraweeh prayers led by Shaykh Sudais and Shaykh Shuraim.

Radio. During Ramadan, our hobby was listening to taraweeh prayers led by Shaykh Sudais and Shaykh Shuraim in radio.

Cookies. Whenever guests (mehmans) would bring this cookies, we would be excited.

Cookies. Whenever guests (mehmans) would bring these cookies, we would be excited.

Do you know the word bleep? Whenever we would see a person with bleep, we would think of him as a very important person.

Do you know the word bleep? Whenever we would see a person with bleep, we would think of him as a very important person.

Abu Bakr Al-Siddique Mosque. We had an acquaintance living near this mosque. Whenever we would visit her house, we would be excited about praying in this mosque. That acquaintance of ours has passed away. O Allah! Have mercy on her. Still today whenever we pass by this mosque, we remember her.

Abu Bakr Al-Siddique Mosque. We had an acquaintance living near this mosque. Whenever we would visit her house, we would be excited about praying in this mosque. That acquaintance of ours has passed away. O Allah! Have mercy on her. Still today whenever we pass by this mosque, we remember her.

Vending machine.

Vending machine.

A must have for Asian mothers.

A must have for Asian mothers.

Shaykh Khalifa bin Hamad- he was the emir of Qatar when I arrived in Doha in 1992.

Shaykh Khalifa bin Hamad- he was the emir of Qatar when I arrived in Doha in 1992.

Old Souq Waqif.

This is old Souq Waqif I guess.

The first NOKIA mobile.

The first NOKIA mobile.

Walkman.

Walkman.

I still like LEGO.

I still like LEGO.

Captain Majed and Mama’s Love

Captain-Tsubasa-Anime-Wallpaper-331

Yesterday I was looking at pictures of life in Qatar in the 90’s when I came across this picture of Captain Majed. Captain Majed was a popular Arabic cartoon we used to watch in QTV in the 90’s.  We never understood the plot of this cartoon series because of not knowing Arabic, but from what is apparent, Captain Majed is a brilliant football player who would always find a way or another to score a goal.

We would not only watch this cartoon, but we would also collect stickers that would come along with Captain Majed wafer bars. We had  a sticker book and we had to collect around fifty unique stickers of Captain Majed to collect a prize. After opening a wafer bar, if we had discovered a sticker that we already had in our collection, we would get disappointed.

In the 90’s, once my mother became very sick. She would cry whole day out of her suffering, and more out of the fear about what might happen to her little boys if she had died from her sickness. Even during that intense sickness, one day after I had opened a Captain Majed wafer bar, my mom asked me if I had won a new Captain Majed sticker.

Subhanallah! This is the love of mother. Even during that time of intense suffering, she cared about trifling things like Captain Majed sticker. She cared if her little boys had found a new sticker or not.

O Allah! I ask You to accept this act of sincere kindness of my mother and I ask You to reciprocate this good deed of her with nothing but the highest level of paradise! Ameen!

বৃষ্টি বিলাস ও বাস্তবতা

20131120_135013
ছোট বেলায় ছড়া শুনতাম আম্মুর কাছেঃ

লেখা পড়া করে যে,
গাড়ি ঘোড়ায় চড়ে সে।

সেজন্য ছোট বেলা থেকেই ঘাড় গুঁজে পড়াশোনা করেছি। এখনো করছি।

আমাদের এক স্যার বলতেন, যতই পড়িবে ততই ভুলিবে, আর যতই ভুলিবে, ততই শিখিবে।

স্যার মনে হয় ঠিকি বলতেন। শেখার কোন কূল কিনারা নাই। পড়া-শোনা আজকাল চরম বিরক্তিকর এক বাস্তবতা।

ছোটবেলায় আমাদের বাসায় কোন ইন্টারনেট-কম্পিউটার ছিল না। আমাদের বাসায় এসব জিনিসের অনুপ্রবেশ ঘটেছে অনেক পরে।

তখন পড়াশানার মাঝখানে বিরতি নেয়ার জন্য গল্পের বই পড়তাম। কবিতা পড়তাম। এইসব গল্প, কবিতা, উপন্যাস পড়া আর স্বপ্নবিলাসিতা সেই সময় অনেক ভাল লাগত।

কারণ জীবনটাই তখন গল্প উপন্যাসের বৃত্তে আবদ্ধ ছিল। জীবনের ফর্মূলা তখন ছিল রৈখিক। পড়া-শোনা করলেই গাড়ি ঘোড়ায় চড়ব, এই ফর্মূলায় চলত জীবন। বাস্তবতার সাথে সেই জীবনের কোন যোগ ছিল না।

কিন্তু বয়সের সাথে বাস্তবতার সঙ্গে মানুষের পরিচয় বাড়ে। বাবার হোটেলে মানুষ সারা জীবন থাকে না। বাবার হোটেল থেকে বিদেয় নেবার পর বাস্তবতার প্রকৃত মর্ম বোঝা যায়।

আমি নিজেও এই বাস্তবতার সাথে পরিচিত হয়েছি। এই বাস্তবতা কঠোর এবং রূঢ়।

এঈ বাস্তবতার অনেক রূপ রয়েছে।

চাকরির বাস্তবতা।

রোগ ব্যাধির বাস্তবতা।

কলহ বিবাদের বাস্তবতা।

কাজের চাপের বাস্তবতা।

বৈষম্যের বাস্তবতা।

সকল বাস্তবতার চাপে একদিন যে আমাকে সবসময় দৌড়ের উপর থাকতে হবে, সেটি একসময় কল্পনাও করিনি।

কোনদিন চিন্তা করিনি যে বাস্তবতার চাপে আমার স্বপ্ন বিলাসগুলো ধূসর হয়ে যাবে।

আজকে কাতারে বৃষ্টি হচ্ছে। মুষলধারে এরকম বৃষ্টি খুব কমই হয় কাতারে। আজকে হচ্ছে। খুব ইচ্ছা করছে মাধ্যমিক স্কুলের দিনগুলোর মত পড়ার ফাঁকে যে স্বপ্ন বিলাস করতাম, সে রকম স্বপ্ন বিলাস করি।

কিন্তু করতে পারছি না। জোর করেও পারছি না।

কারণ বাঁধা হল বাস্তবতা। গতকাল শুনলাম আমার ভাইয়ের এক ক্লাসমেটের লাংস ক্যান্সার ধরা পড়েছে।

কতই বা বয়স। মাত্র চব্বিশ। এই বয়সেই তার বাস্তবতা হচ্ছে ক্যান্সার।

অথচ সেও হয়ত মাধ্যমিকে থাকার সময় আমার মত স্বপ্ন বিলাস করত। কোথায় আজ সেই স্বপ্ন?

পল্লী কবি বলেছেনঃ

আজিকে বাহিরে শুধু ক্রন্দন ছলছল জলধারে,
বেনুবনে বায়ু নাড়ে এলোকেশ. মন যেনো চায় কারে।

আজকে প্রকৃতির এই ক্রন্দন কোন স্বপ্ন বিলাসিতার পথ দেখায় না, বরং এই ক্রন্দন বাস্তবতার কাছে আমাদের অসহায়ত্ব প্রকাশ করছে।

40 Things that Make Me Happy

5557717-key-to-happiness-concept-using-burnt-paper-with-word-happiness-printed-on-it-and-golden-key-placed-o1

Recently I have discovered a page in Facebook called the Happy Page. The admins of this page take inputs from people of what makes them happy and then illustrate it through a picture. They have now over thousands illustrations. The page has inspired me to make my list of 40 things which make me happy 🙂

  1. Happiness is when you think about your future spouse (who you still do not know) and dream all those happily ever after dreams, despite knowing that happily ever after will only happen in Jannah.
  2. Happiness is working on Thursday, because you know that the next two days will be weekend.
  3. Happiness is when you overcome writer’s block and post a blog post.
  4. Happiness is when you receive a new comment.
  5. Happiness is when you visit a country and stay in a five star hotel and your company pays for everything.
  6. Happiness is when your mom is happy.
  7. Happiness is when you think that you have a tough disease and your doctor says that it is nothing.
  8. Happiness is cooking a special dish and serving it to your family members.
  9. Happiness is defeating Shaitan by staying away from a sin that you are tempted to.
  10. Happiness is being able to pour your heart in your dua.
  11. Happiness is when you enjoy the sweetness of imaan (faith).
  12. Happiness is when you go for umrah.
  13. Happiness is when you come home from work and find that you mom has cooked your favorite meal.
  14. Happiness is looking at new cars (or luxurious homes illustrated in a real estate magazine) although you are not going to own them.
  15. Happiness is making a journey by plane.
  16. Happiness is when the imam recites a surah in the prayer that you know by heart.
  17. Happiness is getting an opportunity to recite Quran in microphone.
  18. Happiness is when you attain your daily target of self-improvement goal.
  19. Happiness is when you memorize a new surah from the Quran.
  20. Happiness is dreaming about how your life would be when you get your dream job.
  21. Happiness is when you break your fast and eat your mommy-made iftaar like there is no tomorrow.
  22. Happiness is finding the perfect pen to put your signature.
  23. Happiness is listening to the Quran of your favorite qurra after a stressful day and forgetting everything around.
  24. Happiness is suddenly remembering your good old days when you did not have the worries you are having now.
  25. Happiness is finishing all your exams.
  26. Happiness is when you see a cute child in the masjid or in the mall and think that InShaAllah Allah will also bless you with a cute child like her in future.
  27. Happiness is driving below 120 kph from Ras Laffan to Doha on a moon lit night after a long, hard day of work and enjoying the silence in your car.
  28. Happiness is when you unexpectedly receive a day off from work (like the day off we received when Shaykh Tamim was inaugurated as the new Emir of Qatar).
  29. Happiness is when your company sends you for a training that includes morning breakfast and lunch and you get a break from your regular grinding.
  30. Happiness is when the imam whose recitation you like comes to lead the prayer.
  31. Happiness is when you do a good deed.
  32. Happiness is getting the opportunity to delve into the world of silence when you really need some time alone.
  33. Happiness is when you find someone whom you can express your issues without him or her being judging you for having these issues.
  34. Happiness is sitting at Al-Khor Chorniche alone at night when the Chorniche is deserted and listening to the sounds of waves.
  35. Happiness is staying at home.
  36. Happiness is pizza (and many other foods).
  37. Happiness is when you come out of toilet fully emptying your intestine.
  38. Happiness is a side pillow.
  39. Happiness is when you suddenly wake up from your sleep and you discover that you can still sleep one or two hours before you have to wake up for work.
  40. Happiness is sleeping until 11 AM on Saturdays.

ছন্দপতন

74954867

আমি কয়েক বছর ধরে ব্লগে প্রায়ই সিরিয়াস জিনিস পত্তর লিখে আসছি। কিন্তু ব্লগে লেখার মানেই কি সিরিয়াস জিনিস পত্তর লিখতে হবে?

হবে না। মাঝে মধ্যে মনে যা আসবে তাও হঠাত করে লিখে ফেলা উচিত। তাতে মন হালকা হবে। এই ব্লগ খোলার অনেক উদ্দেশ্য ছিল। একটা উদ্দেশ্য ছিল ডিউটি (যারা কাতারে থাকে, তারা দৈনন্দিন কাজকে বলে ডিউটি) থেকে ফিরে এসে লেখালেখি করে মনের স্ট্রেস কমানো। সেই উদ্দেশ্য সফল করার জন্য ব্লগের হওয়া উচিত “স্বাধীনতা আমার যেমন ইচ্ছে লেখা ওয়ার্ডপ্রেস ব্লগ”।

মানুষের জীবনটা যান্ত্রিক। ঘুম থেকে ওঠ। ডিউটিতে যাও। রুটিন মাফিক কাজকর্ম কর। বসকে খুশি কর। বাসায় ফিরো। গোসল কর। নামায পর। খাওয়া-দাওয়া কর। তারপর আবার ঘুম। ঘুমের মানে হল নিত্যদিনের চক্রের জন্য নিজেকে আবার তৈরি করা।

প্রাত্যহিক এই চক্র একঘেয়েমিকর। তবে আমরা প্রায়ই এই একঘেয়েমি জিনিসটি ধরতে পারি না। মানিয়ে নেই। আমাদের মানানোর ক্ষমতা অনেক। আমাদের মনে হতে থাকে যে এই চক্রের আবর্তনই স্বাভাবিক। এভাবে দিন যায়। রাত যায়। মাস যায়। বছর পেরোয়।

তবে মাঝে মধ্যে এই চক্রের সবকিছু ঠিকঠাক থাকলেও হঠাত একদিন ঘুম থেকে উঠে মনে হয় যে কোথাও কোন ছন্দপতন হয়েছে। সূক্ষ্ণ ছন্দপতন। বাইরে থেকে বোঝা যাবে না। কারণ বাইরের সব কিছু ঠিকঠাক থাকে। কিন্তু যার এই ছন্দপতনটা হয়, শুধু সেই বুঝতে পারে। কিন্তু কাউকে বলতে পারে না। বলতে গেলে সবাই বলে, ছন্দপতন কেন হল বা কোথায় হল—কারণ ত কিছুই দেখতে পাচ্ছি না। যার ছন্দপতন হয়েছে, সে নিজেও বলতে পারে না কারণটা কি! তবে ছন্দপতন যে হয়েছে, সেটা অনুভব করতে পারে। মনে হয় জিনিসটা খালি অনুভবের বিষয়। শুধু অনুভব করা যায়, ভাষায় প্রকাশ করা যায় না।

এই ছন্দপতন বিষয়টা টেম্পোরারি, পারমানেন্ট না। তবে যখন ছন্দপতন অবস্থা চলতে থাকে, তখন অনেক কিছুই স্বাভাবিকভাবে আসে না। জোর করে আনতে হয়। জোর করে যে কোন কিছু করাই কষ্টের। সব চেয়ে বেশি কষ্ট যখন মানুষকে জোর করে অভিনয় করতে হয়।

দুঃখের বিষয় হল, মানুষের জীবনে সবচেয়ে বেশি করতে হয় অভিনয়। এত অভিনয়ের কারণেই আমাদের জীবনে ক্লান্তি এবং স্ট্রেস বেশি। হয়ত আপনার বস আপনাকে এমন কিছু করতে বলেছে যেটি আপনার কাছে আহাম্মকি ছাড়া আর কিছুই মনে হচ্ছে না। তবে আপনাকে হাসি দিতে হবে এবং ভান করতে হবে যে আপনি এই পৃথিবীর আনন্দময় কাজগুলোর একটি করতে যাচ্ছেন।

কোন দিন হয়ত কাজেই যেতে ইচ্ছা করবে না। তবে আপনাকে অবশ্যই কাজে যেতে হবে এবং স্বাভাবিক থাকতে হবে। এবং কাজ করতে হবে।

মাঝে মধ্যে হয়ত কথা বলতে ইচ্ছা করবে না। কিন্তু হাসি মুখে কথা বলতে হবে। নইলে লোকে বলবে, ভাব লয়।

ছন্দপতন বিষয়ক এই জ্ঞান-গর্ভ লেখার এখানেই ইতি টানতে হচ্ছে। কারণ যেকোন সময় আম্মু এসে পরতে পারে এবং লেখালখি দেখলেই জিজ্ঞেসে করবে, “বাবু কি লিখছিস?” যে জিনিস শুধু অনুভব করা যায়, ব্যাখ্যা করা যায় না, সে বিষয়ে ব্যাখ্যার ঝামেলায় যাওয়ার কি কোন দরকার আছে?